1. munnanews@gmail.com : Mozammel Hossain Munna : Mozammel Hossain Munna
  2. badal.satvnews@gmail.com : Badal Saha : Badal Saha
  3. jmmasud24@gmail.com : Mozammel Hossain Munna : Mozammel Hossain Munna
 মুকসুদপুরে বরই চাষ করে কৃষকের ভাগ্য বদল | Dainik Mohona
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১৪ অপরাহ্ন
নোটিশ :
দৈনিক মোহনা পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাদের স্বাগতম। করোনা ভাইরাস রোধে নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার রাখুন, বাইরে গেলে মাস্ক ব্যবহার করুন। ধন্যবাদ।

 মুকসুদপুরে বরই চাষ করে কৃষকের ভাগ্য বদল

  • ..............প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৮ জন সংবাদটি পড়েছেন।

মোহনা রিপোর্ট।।

উন্নত জাতের বরই চাষ করে ভাগ্য বদলেছেন গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার কদমপুর গ্রামের কৃষক সামিউল। তার পরিবারে ফিরেছে সুদিন। পাশাপাশি এই কুল বাগানে কাজ করে খেয়ে পরে ভালো আছেন আরো ৩০ পরিবার।জেলার অন্য কৃষকেরা এ ধরনের আরো বরই বাগান করে নিজেদের ভাগ্য বদলাবেন এমনটি প্রত্যাশা কৃষি বিভাগের।

কৃষক সামিউল ওই এলাকার বিভিন্ন জমি মালিকের কাছ থেকে সাড়ে ৩ একর কৃষি জমি লিজ নিয়ে এবছরের প্রথম দিকে শুরু করেন উন্নত জাতের কুল চাষ। তিনি তার ওই জমিতে ২হাজার ৮শ’ চারা লাগিয়েছেন। চাষ শুরুর পর বছর ঘুরতে না ঘুরতেই বাগানের বরই গাছে আশাতিত ফল ধরেছে। বরই বাগানে ছোট ছোট গাছে বরই ভরে গেছে। মাত্র ২লাখ টাকা খরচ করে বরই বাগানের কৃষক সামিউল এখান থেকে ১৫লাখ টাকার বরই বিক্রি করার আশা করছেন।

বলসুন্দরী বা কাশ্মিরী জাতের বরই ছাড়াও এই কৃষক সিডলেস বরইসহ ৪ প্রকার বরই চাষ করেছেন।এসব বরই খেতে মিষ্টি, সুস্বাদু এবং পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ ফল হওয়ায় বাজারে এর চাহিদাও রয়েছে প্রচুর। সামিউলের এ সাফল্যে ইতোমধ্যেই এলাকায় ব্যাপক সাড়া পড়েছে। এলাকার অনেক যুবক বরই চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

মুকসুদপুরের কমলাপুর গ্রামের হায়দার হোসেন, মেহের মামুন, দাসের হাট গ্রামের পরেশ বিশ্বাস এসেছেন সামিউলের বরই ক্ষেত দেখতে। তারা এই বাগান দেখে অভিভূত। তারাও তাদের জমিতে এই ধরনের বরই বাগান করবেন বলে জানান। তারা জানান, তারা এই বরই বাগানের কথা শুনে দেখতে এসেছেন। আগামী বছর তারাও এখান থেকে বরই চারা ও পরামর্শ নিয়ে বরই চাষ করবেন বলে জানান।

কৃষক সামিউল জানান, সাড়ে তিন একর জমিতে বরই চাষ করেছি। এ বাগানে নিয়মিত ৩০ জন লোক কাজ করে। অনেকে আমার কাছে পরামর্শ নিতে আসে। আমি তাদের বরই চাষ করতে বলি। আমার চাষকৃত বরই নতুন জাতের। এতে অনেক বেশী ফলন। বরইয়ের চারা বানিয়েছি। কেউ চারা ও পরামর্শ নিতে আসলে আমি তাদেরকে পরামর্শ দেই। বিশেষ করে যারা বেকার রয়েছে তাদেরকে আমি পরামর্শ দিয়ে থাকি এই যাতের বরই চাষ করতে। একদিকে নিজের বেকারত্ব ঘুচবে এবং পাশাপাশি আরো অনেককে তার বরই বাগানে কাজ দিতে পারবেন। আমি বেকার যুবকদেরকে কম দামে চারা দেয়াসহ পরামর্শ দেবার কথা এলাকায় জানিয়ে দিয়েছি। আমার এখান থেকে ‍বরইয়ের চারা নেয়ার জন্য বিভিন্ন জেলা থেকে লোকজন আসছেন। তাদের কাছে আমি চারা বিক্রি করেও বেশ অর্থ উপর্জন করতে পারছি। আমি এই বরইয়ের চাষ করে বেশ লাভবান বলে জানান তিনি।

বেশ কয়েকজন শ্রমিকের সাথে কথা হয় বরই বাগানে। তারা জানান, এই বরই বাগানে কাজ করে প্রতিদিন যা আয় করি তাতে আমরা পরিবার নিয়ে খেয়ে পরে ভাল আছি। এখানে বরই গাছে যেভাবে বরই ধরেছে তাতে মন ভরে যায়। আগামীতে আমরাও এই জাতের বরই বাগান করবো বলে আশা করছি।কিভাবে চাষাবাদ করতে হয় তাতো শিখেই যাচ্ছি। যা পরবর্তিতে আমাদের কাজে লাগবে। তখন আর অন্যের জমিতে নয়, নিজের জমিতেই শ্রম দিতে পারবো। অন্যদেরকেও কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা যাবে।

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. অরবিন্দ কুমার রায় বলেন, কৃষকেরা যদি এই বরই  চাষে উদ্বুদ্ধ হন তাহলে আমাদের দেশের পুষ্টি চাহিদা পুরন হবে এবং কৃষক উপকৃত হবেন। আমি সবাইকে এরকম বাগান করার পরামর্শ দিচ্ছি ।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Development By JM IT SOLUTION