1. munnanews@gmail.com : Mozammel Hossain Munna : Mozammel Hossain Munna
  2. badal.satvnews@gmail.com : Badal Saha : Badal Saha
  3. jmmasud24@gmail.com : Mozammel Hossain Munna : Mozammel Hossain Munna
গোপালগঞ্জে কাঁচা মরিচের ঝাঁঝে নাকাল ক্রেতা | Dainik Mohona
মঙ্গলবার, ২৫ অগাস্ট ২০২০, ০৫:০৪ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
দৈনিক মোহনা পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাদের স্বাগতম। করোনা ভাইরাস রোধে নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার রাখুন, বাইরে গেলে মাস্ক ব্যবহার করুন। ধন্যবাদ।
শিরোনাম :
গোপালগঞ্জে কাঁচা মরিচের ঝাঁঝে নাকাল ক্রেতা গোপালগঞ্জে বন্যা দূর্গত মানুষের মাঝে নিরাপদ খাবার পানি সরবরাহ করছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর গোপালগঞ্জে মানববন্ধন কর্মসূচি মুজিব জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান গোপালগঞ্জ বশেমুরবিপ্রবি’র কম্পিউটার চুরির ঘটনায় একের পর এক নাটকীয়তা বহুমূখী জনকল্যানমূলক কার্যক্রমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী আর্থ সামাজিক এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে সেনাবাহিনী টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে বিমসটেকের মহাসচিবের শ্রদ্ধা গোপালগঞ্জে বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়া স্কুল মাঠে ব্যতিক্রমি নৌকা বাইচ গোপালগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার মৃত্যুতে নেতা-কর্মীদের মধ্যে শোক

গোপালগঞ্জে কাঁচা মরিচের ঝাঁঝে নাকাল ক্রেতা

  • ..............প্রকাশিত : সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০
  • ১৬ জন সংবাদটি পড়েছেন।

মোহনা রিপোর্ট।।

গোপালগঞ্জে কাঁচা মরিচের ঝাঁঝ বেড়ে গেছে। আর এতে নাকাল ক্রেতা সাধারন। প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে দাম। তাই অনেকেই কাঁচা মরিচের পরিবর্তে শুকনা মরিচ ব্যবহার করছেন। গত এক সপ্তাহ ধরে গোপালগঞ্জের বিভিন্ন হাট-বাজারে ২৪০ থেকে ২৫০ টাকা দরে কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে।

গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার উরফি গ্রামের ওদুদ মৃধা বলেন, কাঁচা মরিচ এখন ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে।এখন ১০০ গ্রাম মরিচ কিনতে ২৫ টাকা লাগে। তাই মরিচ কিনতে গেলে আর তরকারি কেনা সম্ভব হচ্ছে না। বেশ কিছুদিন ধরে এমন অবস্থা চলছে।

শহরের পাঁচুড়িয়া এলাকার আকবার হোসেন বলেন, কাঁচা মরিচের যে দাম এখন তো আর মরিচ ছাড়া তরকারি খেতে হচ্ছে। বাজারে যে মরিচ পাওয়া যাচ্ছে তার মান ভাল না। দাম আকাশ ছোয়া।ঝাল ও আবার কম। আমাদের পক্ষে এতো দামে মরিচ কিনে খাওয়া সম্ভব না।

শহরের বাজার এলাকার বাসিন্দা বাদল সাহা বলেন, কাঁচা মরিচের দাম বেশি হওয়া বর্তমানে শুকনা মরিচের তরকারি খাচ্ছি। শুকনা মরিচের তরকারি খাওয়ার পর বুক ও পেট জ্বলা-পোড়া করে।

গোপালগঞ্জ বড় বাজারে তরকারি ব্যবসায়ী পংকজ রায় ও নির্মল বিশ্বাস বলেন, গোপালগঞ্জে উত্তরবঙ্গ থেকে কাঁচা মরিচ আসে। বন্যার কারণে মরিচের ক্ষেত পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় কাঁচা মরিচ পাওয়া যাচ্ছে না। আর যা পাওয়া যায় তার মানও ভাল না।বর্তমানে এক কেজি কাঁচা মরিচ ২৪০ থেকে ২৫০ টাকা বিক্রি করলেও লাভ হয় না। অন্য তরকারি বিক্রি করতে বাধ্য হয়েই মরিচ রাখতে হয়। তারপরও মরিচ নিয়ে ক্রেতার সাথে বিভিন্ন সময় বাগ-বিতন্ডা হয়।

শহরের বটতলা বাজারের রফিক মোল্লা, উন্নতি বিশ্বাস ও অনিচ মোল্লা বলেন, কাঁচা মরিচের যে দাম অনেকেই খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। তারপরও আমরা দোকান চালানোর জন্য এক কেজি আধা কেজি রাখি। কিন্তু অনেকে কাঁচা মরিচের পরিবর্তে শুকনা মরিচ কিনছেন।

আড়ৎ মালিক শিবু বিশ্বাস ও দীপক বিশ্বাস বলেন, কাঁচা মরিচের আড়তে মরিচ পাওয়া যাচ্ছে না। বন্যায় মরিচ ক্ষেতে ব্যাপক ক্ষতি হযেছে। বর্তমানে যে মরিচ পাওয়া যাচ্ছে দাম অনেক বেশি। এক কথায় কাঁচা মরিচে লাভ তো দুরের কথা খরচই উঠছে না। আড়ত চালাতেই বাধ্য হয়ে মরিচ আনতে হচ্ছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Development By JM IT SOLUTION