1. munnanews@gmail.com : Mozammel Hossain Munna : Mozammel Hossain Munna
  2. badal.satvnews@gmail.com : Badal Saha : Badal Saha
  3. jmmasud24@gmail.com : Mozammel Hossain Munna : Mozammel Hossain Munna
আধা ঘন্টার গরম বাতাসে ধানের ক্ষেত নষ্ট | Dainik Mohona
সোমবার, ০৫ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৫৬ অপরাহ্ন
নোটিশ :
দৈনিক মোহনা পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাদের স্বাগতম। করোনা ভাইরাস রোধে নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার রাখুন, বাইরে গেলে মাস্ক ব্যবহার করুন। ধন্যবাদ।

আধা ঘন্টার গরম বাতাসে ধানের ক্ষেত নষ্ট

  • ..............প্রকাশিত : সোমবার, ৫ এপ্রিল, ২০২১
  • ১ জন সংবাদটি পড়েছেন।

স্টাফ রিপোর্টার।।

জেলার টুঙ্গিপাড়া, কোটালীপাড়া এবং কাশিয়ানীতে এক রাতের মধ্যে শত শত হেক্টর জমির ধান সবুজ থেকে সাদা হয়ে গেছে। কৃষি সংশ্লিষ্টরা বলছেন লু হাওয়ার কারনে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল( রোববার) রাতে ৩০ মিনিটের মতো এসব এলাকা গরম বাতাস বয়ে যায়। আর এতে ক্ষেতে উঠতি বোরো ধান যে গুলেতে কেবল মাত্র ধানের শীষে “দুধ” এসেছে সেই ধান সব চিটায় পরিনত হয়ে সাদা বর্ন ধারন করেছে। আর এতে জেলার শত শত কৃষকেরা কয়েক কোটি টাকার ক্ষতির সম্মূখীন হয়েছেন। অনেকেরই সব আশায় গুড়ে বালি পড়েছে। কোটালীপাড়ার কান্দি ইউনিয়নের ভেন্নাবাড়ি গ্রামের কৃষক সুবরন বিশ্বাস, তালপুকুরিয়া গ্রামের কিশোর বাড়ৈ, পিঞ্জুরী ইউনিয়নের পূর্নবতী গ্রামের সরোয়ার হাওলাদার, ওলিউল্লাহ হাওলাদার জানান, গতকাল রোববার বিকেলেও তারা তাদের ধান ক্ষেতে সবুজ দেখে আসলেও সকালে জমির আলে গিয়ে দেখেন সব ধান সাদা হয়ে গেছে। দেখেতো তারা তাজ্জব বনে গেছেন। কিছুই বুঝে উঠতে পারেননি। কিভাবে কি হলো।

রোববার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে কোটালীপাড়া উপজেলার কান্দি ইউনিয়নসহ কয়েকটি ইউনিয়নের উপর দিয়ে গরম হাওয়া বয়ে যায়। আধা ঘন্টা ধরে চলা এ গরম হাওয়ায় উপজেলার কান্দি, পিঞ্জুরী, হিরণ ও আমতলী ইউনিয়নের প্রায় ৬ থেকে ৭ শত হেক্টর জমির বোরো ধান নষ্ট হয়ে গেছে বলে উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানাগেছে। নষ্ট হয়ে যাওয়া ধানের আনুমানিক মূল্যে প্রায় ১০ কোটি টাকা। তবে ক্ষতির পরিমান আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন উপজেলা কৃষি অফিসার নিটুল রায়। পূর্ণবর্তী গ্রামের কৃষক ওলিউল্লাহ হাওলাদার বলেন, আমি এবার ১৭ বিঘা জমিতে বোরো আবাদ করেছি। গত কাল বিকেলে অধিকাংশ জমিই ঘুরে দেখেছি। সব জমির ধান ভালো ছিল। আজ সকালে ক্ষেতে গিয়ে দেখি সব ধান নষ্ট হয়ে গেছে। শুধু আমার জমির ধানই নয়, পুরো পূর্ণবর্তী গ্রামের দক্ষিণ পাশের সমস্ত বিলের ধান নষ্ট হয়ে গেছে।

আমতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হান্নান শেখ বলেন, আজ সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত আমার সাথে প্রায় অর্ধশত কৃষকের কথা হয়েছে। তারা জানিয়েছেন, আমতলী ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়া বিলে তাদের জমির ধান এক রাতেই নষ্ট হয়ে গেছে। এসব কৃষক আগামী বছর কি খেয়ে বাচঁবে তা নিয়ে তাদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার নিটুল রায় বলেন, আজ সোমবার সকালে আমরা উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টি ইউনিয়নে এ অবস্থার কথা শুনতে পাই। সাথে সাথে আমি আমাদের অফিসারদের সাথে নিয়ে ক্ষেতগুলো দেখতে যাই। আমার ধারণা গরম বাতাসের কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। পরাগায়নটা শুকিয়ে গেছে। যে কারণে ধান গাছগুলো ঠিক আছে। তবে শিষগুলো শুকিয়ে সাদা হয়ে গেছে। প্রাথমিক ভাবে আমরা প্রায় ৬ থেকে ৭শত হেক্টর জমির ধান নষ্ট হয়ে যাওয়ার খবর পেয়েছি। এতে কৃষকদের প্রায় ১০ কোটি টাকার ক্ষতি হবে। তবে ক্ষতির পরিমান আরও বাড়তে পারে। সে বিষয়ে আমরা মাঠে কাজ করছি।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ জামাল উদ্দিন বলেন, কৃষকরা খবর দেয়ার পর আমি সোমবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শণ করেছি। সেখানে গিয়ে দেখা যায় জমির ধানগুলো সাদা বর্ণ ধারন করেছে। এসময় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা আমাকে জানিয়েছেন, রাত সাড়ে ১১টার দিকে প্রচন্ড বেগে গরম বাতাস বইতে শুরু করে। তখন আমরা কিছু ঠিক পাইনি। সকালে যখন ধান দেখতে জমিতে গিয়েছি তখন দেখি জমির মধ্যে ছোপ ছোপ আকারে ধানগাছ সাদা হয়ে দাড়িয়ে আছে।

তিনি আরো বলেন, এবছর টুঙ্গিপাড়ায় আট হাজার ছয়শত হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে শতকরা প্রায় ২৫ ভাগ ধান ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে। তবে ক্ষতির পরিমান আরো বাড়তে পারে। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের তালিকা প্রস্তুতের কাজ চলছে।

 

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. অরবিন্দ কুমার রায় বলেন, গরম  বাতাসে জেলার টুঙ্গিপাড়া, কোটালীপাড়া, কাশিয়ানী ও সদর উপজেলার বোরো ধানের বেশ ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতির পরিমান নিরুপনে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা ইতোমধ্যে মাঠে নেমেছে। ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের তালিকা ও ক্ষতির পরিমান লিপিবদ্ধ করার কথা বলা হয়েছে। বিষয়টি ধান গবেষণা ইনিষ্টিটিউটকে জানানো হয়েছে। তারা মাঠ পরিদর্শনে নেমেছেন বলেও তিনি জানান।

উল্লেখ্য, এ বছর জেলায় ৭৮ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে বলে জেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Development By JM IT SOLUTION